WMA 200 এ বাধা পেল ডিএসইএক্স ইনডেক্স

স্টাফ রিপোর্টার : উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে শেয়ারবাজার অতিবাহিত হচ্ছে। বর্তমান শেয়ার বাজারের বিভিন্ন টেকনিক্যাল বিষয় নিয়ে স্টক টাইমসের সঙ্গে কথা হয় এন.এল.আই সিকিউরিটিজের এক্সেকিউটিভ অফিসার মেহেদী আরাফাতের। শেয়ারবাজার নিয়ে তাঁর মূল্যবান অ্যানালাইসিস পাঠকদের উদ্দেশ্যে তুলে ধরা হলো।

মেহেদী আরাফাত বলেন, টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস অনুযায়ী শেষ কার্য দিবসে শেয়ারবাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়- ডিএসইএক্স ইনডেক্স লেনদেনের শুরু থেকেই বাড়তে থাকে। দিনের শুরুতে ভাল ক্রয়চাপ থাকলেও কিছু সময় পর বিক্রয় চাপের ফলে সূচক নিম্নমুখী হতে থাকে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বিক্রয় চাপ বৃদ্ধি পেতে থাকে এবং দিনশেষে সূচক ১২.০৯ পয়েন্ট হ্রাস পেয়েছে। সূচকের এ দর পতনের ফলে আজকের ক্যান্ডেলস্টিক একটি নেয়ার ডোজি ক্যান্ডেলস্টিক ছিল। এই নেয়ার ডোজি ক্যান্ডেলস্টিক বাজারের সিধান্তহীনতা প্রকাশ করে। এটি আগামিকালকের বাজারের উপর নির্ভর করবে।

তিনি বলেন, TA বিশ্লেষকদের মতে WMA 200 রেখা ডিএসইএক্স ইনডেক্স এর রেজিটেন্স হিসেবে কাজ করছে। ২০১৮ সালের মার্চ মাস থেকে এটি বাজারের ডায়নামিক রেজিটেন্স হিসেবে কাজ করছে, যেটি বাজার ২ বছর ধরে ভাঙতে পারছে না। ২০১৯ সালের শুরুতে একবার ভাঙলেও সেটি ধরে রাখতে পারেনি। এই বার WMA 200 রেখা সফল ভাবে ভাঙ্গতে পারলেও গতকাল বাধা পেয়েছে। যে কোনদিন এটা ভেঙ্গে উপরের দিকে যাবে ডিএসইএক্স ইনডেক্স, এমনটাই ধারনা করছে TA বিশ্লেষকরা।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে ডিএসই এক্স ইনডেক্স এর পরবর্তী সাপোর্ট ৪৩৮০ পয়েন্টে এবং রেজিটেন্স ৪৭৫০ পয়েন্টে অবস্থান করছে। আজ বাজারে এম.এফ.আই এর মান ছিল ৯৭.৩৫ এবং আল্টিমেট অক্সিলেটরের মান ছিল ৮০.২৭। এম.এফ.আই কিছুটা নিম্নমুখী অবস্থান করছে এবং আল্টিমেট অক্সিলেটর কিছুটা নিম্নমুখী অবস্থান করছে।

তিনি বলেন, ডিএসইতে ৩৭ কোটি ১ লাখ ২৫ হাজার ৮৬৯ টি শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড লেনদেন হয়, যার মূল্য ছিল ১০৪৮০.৬৫ কোটি টাকা। ডিএসইতে লেনদেন হ্রাস পেয়েছে ৮০৫ কোটি টাকা। ঢাকা শেয়ারবাজারে ৩৫৪ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে, যার মধ্যে দাম বেড়েছে ১১১ টির, কমেছে ২১৭ টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২৬ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম।

মেহেদি আরাফাত বলেন, পরিশোধিত মূলধনের দিক থেকে দেখা যায়, বাজারে চাহিদা বেশী ছিল ৫০-১০০ কোটি টাকার পরিশোধিত মূলধনী প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের যা আগেরদিনের তুলনায় ১৮.১৫% বেড়েছে। অন্যদিকে হ্রাস পেয়েছে ০-২০ কোটি এবং ২০-৫০ কোটি টাকার পরিশোধিত মূলধনী প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের;যা আগেরদিনের তুলনায় ১৫.০৪% এবং ১৯.০১% কম। অন্যদিকে ৩০০ কোটি টাকার উপরে পরিশোধিত মুলধনী প্রতিষ্ঠানের লেনদেনের পরিমান গতকালের তুলনায় ১৫.৩৪% কমেছে।

পিই রেশিও ৪০ এর উপরে থাকা শেয়ারের লেনদেন আগের দিনের তুলনায় ৬.৮৭% কমেছে। অন্যদিকে পিই রেশিও ২০-৪০ এর মধ্যে থাকা শেয়ারের লেনদেন আগের দিনের তুলনায় ৭.২৯% বেড়েছে।

ক্যাটাগরির দিক থেকে এগিয়ে ছিল ‘বি’ ক্যাটাগরির শেয়ারের লেনদেন যা আগেরদিনের তুলনায় ২৬.৮% বেশী ছিল। বেড়েছে  ‘এন’ ক্যাটাগরির শেয়ারের লেনদেন যা আগেরদিনের তুলনায় ৪.২৩% বেশী ছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here