বিশ্ববাজারে বাংলাদেশি ইউনানী ওষুধের চাহিদা বাড়ছে

বাংলাদেশি ওষুধ শিল্পের সুনাম এখন বিশ্বজুড়ে। ফলে দিন দিন বিশ্ব বাজারে বাংলাদেশি ওষুধের চাহিদা বাড়ছে। এর মূল কারণ হলো দেশীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতে উৎকৃষ্টমানের ওষুধ উৎপাদন। ওদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ওষুধ রপ্তানি করে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড (বিপিএল) আগেই নয়া ইতিহাস সৃষ্টি করেছে।

ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের তথ্যানুযায়ী, সর্বমোট ২৬৯টি এ্যালোপ্যাথিক ওষুধ প্রস্তুতকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন নামে বছরে ২৪ হাজার রকমের ১২ হাজার ৫৬৫ কোটি টাকার ওষুধ ও ওষুধের কাঁচামাল উৎপাদন করে। সরকার অনুমোদিত বিদেশ থেকে প্রযুক্তি ও কাঁচামাল এনে উৎপাদন ও বাজারজাতকৃত জেনেরিক ওষুধের (এ্যালোপ্যাথিক, ইউনানি, আয়ুর্বেদিক ও হোমিওপ্যাথিক) সংখ্যা এক হাজার ২০০টি।

প্রায় ২৫ হাজার নাম (ব্র্যান্ড) নাম ব্যবহার করে এসব ওষুধ প্রস্তুত করছে প্রায় ৯০০টি দেশীয় প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের ভ্যাকসিন উৎপাদন ওষুধের অভ্যন্তরীণ চাহিদা পূরণ, আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন ওষুধ উৎপাদন, বাংলাদেশে উৎপাদিত বিভিন্ন ওষুধ বিদেশে রফতানি-সবখানেই এই খাতের সাফল্য এখন আকাশছোঁয়া।

প্রতিবছরই ওষুধ শিল্পখাতে নতুন নতুন উদ্ভাবন আর বিস্ময়কর সব সাফল্য আসছে। ওষুধ রফতানির দেশের সংখ্যাও একের পর এক বেড়ে চলেছে। ওষুধ আমদানিও কমে আসছে। এসবই সম্ভব হয়েছে এই খাতের মেধাবী উদ্যেক্তা, ফার্মাসিস্ট, কেমিস্ট, বায়োকেমিস্ট, বায়োটেকনোলজিস্ট, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ারদের নিরলস পরিশ্রম এবং সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোর ধারাবাহিক সহযোগিতার কারণে।

একসময় কারও কল্পনাতেও ছিল না যে ইউরোপ, আমেরিকার মতো উন্নত দেশ বাংলাদেশে উৎপাদিত ওষুুধ কিনে খাবে। অথচ সত্যটা হলো-বাংলাদেশে উৎপাদিত ওষুধ এখন আমেরিকা, ইউরোপের দেশগুলোতে বিক্রি হচ্ছে। সেদেশের মানুষ আস্থা ও বিশ্বাসের সঙ্গে বাংলাদেশে উৎপাদিত ওষুধ ব্যবহার করছে। ওষুধ শিল্পখাতের জন্য এটি নিঃসন্দেহে ঈর্ষণীয় সাফল্য।

সম্প্রতি এ খাতের সবচেয়ে বড় সাফল্য হলো-গুণগত মান অক্ষুণœ রেখে আমেরিকাসহ বিদেশের বাজারে বাংলাদেশে উৎপাদিত ওষুধের ব্যাপক চাহিদা সৃষ্টি করা। বিদেশের বাজারে প্রতিনিয়ত আমাদের উৎপাদিত ওষুধ রফতানি হচ্ছে, যার পরিমাণ ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। গর্বের সঙ্গেই উল্লেখ করতে হয় আগে অনেক ওষুুধ বাজারে পাওয়া যেত না, বাইরের দেশের দিকে তাকিয়ে থাকতে হতো, কিন্তু এখন আর সে অবস্থা নেই। আমাদের দেশে এখন অনেক উন্নত মানের ও উচ্চ প্রযুক্তির ওষুধ তৈরি হচ্ছে।

এখানেই শেষ নয়, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এই খাতে বহুবিধ পরিবর্তন ও নতুনত্বও আসছে। ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানিগুলো এখন শুধু ওষুুধ উৎপাদনেই নিজেদের সম্পৃক্ত রাখেনি, আন্তর্জাতিক বাজারকে সামনে রেখে নিজেদের বিভিন্নভাবে বিস্তৃত করছে। বায়োহাইজিন ইকুইপমেন্ট তৈরি করা থেকে শুরু“করে ওষুধের কাঁচামাল তৈরিতেও মনোযোগী হয়েছে বাংলাদেশের কোম্পানিগুলো।

ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের ২০১৬ সালের বার্ষিক প্রতিবেদনের তথ্যমতে, ২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ১২০টি দেশে মোট ৮১২ কোটি ৫১ লাখ টাকার ওষুধ, কাঁচামাল ও মেডিকেল ডিভাইস রফতানি করা হয়েছে। আর ২০১৬ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ১২৭টি দেশে এ রফতানির পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২৪৭ কোটি ৫ লাখ টাকায়।

এ হিসাবে মাত্র এক বছরের ব্যবধানে ওষুধ রফতানির পরিমাণ বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। বর্তমানে দেশের ৪১টি কোম্পানির তৈরিকৃত ওষুধ বিশ্বের ১২৭টি দেশে রফতানি হচ্ছে। এর মধ্যে এশিয়ার দেশ রয়েছে ৩৭টি। এছাড়া দক্ষিণ আমেরিকার ২১টি, আফ্রিকার ৩৪টি, উত্তর আমেরিকার ৪টি, ইউরোপের ২৬টি ও অস্ট্রেলিয়ার ৫টি দেশে নিয়মিত ওষুধ রফতানি হচ্ছে। ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের তথ্যমতে, ২০১৫ সালের জুলাই থেকে ২০১৬ সালের জুলাই পর্যন্ত ওষুধ রফতানি হয়েছে মোট ৮৩৬ কোটি ৮২ লাখ টাকার। এর মধ্যে বেক্সিমকো ফার্মা ওষুধ রফতানি করেছে ১৫৭ কোটি ৫৬ লাখ টাকার। আর ইনসেপ্টা ৮৬ কোটি ৬০ লাখ টাকা ও স্কয়ার ফার্মা ৭৬ কোটি ৫৬ লাখ টাকার ওষুধ রফতানি করে।

বিভিন্ন দেশে ওষুধ রফতানিকারক কোম্পানিগুলোর মধ্যে এছাড়া রয়েছে দ্য একমি ল্যাবরেটরিজ লিমিটেড, এ্যারিস্টো ফার্মা, রেনেটা, এসকেএফ ফার্মা বাংলাদেশ, এসিআই, পপুলার, বায়োফার্মা, অপসোনিন, গ্লোবফার্মা, বীকনফার্মা, ড্রাগস ইন্টারন্যাশনাল, হেলথকেয়ারফার্মা, ওরিয়নফার্মা, জেসন, নাভানা, জেনারেল, ডেল্টা, গ্লাস্কো, ইবনে সিনা, রেডিয়ান্ট, নভো হেলথকেয়ার ফার্মা, নিপ্রো জেএমআই, ইডিসিএল, এ্যামিকো ল্যাবরেটরিজ, গ্লোব ফার্মাসিউটিক্যালস, টেকনো ড্রাগস, জিসকা ফার্মাসিউটিক্যালস, এ্যাক্টিভ ফাইন কেমিক্যাল লিমিটেডসহ আরও বেশ কয়েকটি কোম্পানি।

ওষুধ শিল্প-সংশ্লিষ্টরা জানান, বিদেশে রফতানি হয় এমন ওষুধের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের ট্যাবলেট, ক্যাপসুল, ইনজেকশন ও ইনহেলার উল্লেখযোগ্য। তবে এর অধিকাংশ ওষুধই জেনেরিক নামে রপ্তানি হচ্ছে। কিছু কোম্পানি নিজস্ব ব্র্যান্ড নামে ওষুধ রফতানি করলেও তার সংখ্যা এখনও কম, যা আরও বাড়ানো প্রয়োজন।

ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের সূত্রমতে Biomanix plus এর price in bangladesh খুবই অল্প দামে এবং সারা বিশ্বেই পাওয়া যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here