৫ লাখ টাকা নিবন্ধন ফি রেখেই ট্রেক ইস্যুর বিধিমালা চূড়ান্ত

স্টাফ রিপোর্টার : দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ঘোর বিরোধিতার পরেও ৫ লাখ টাকা নিবন্ধন ফি রেখেই ট্রেডিং রাইট এনটাইটেলমেন্ট সার্টিফিকেট (ট্রেক) বিক্রির চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। যা নিয়ে ডিএসই শুরু থেকেই বিরোধীতা করে আসছে। এমনকি ডিএসইর পর্ষদের মধ্যেও এ নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয়। এতে ডিএসইর ৪ জন শেয়ারহোল্ডার পরিচালকের মধ্যে একমাত্র রকিবুর রহমানের সম্মতি থাকলেও শাকিল রিজভী, মিনহাজ মান্নান ইমন ও মোহাম্মদ শাহজাহান বিরোধীতা করেন। তবে বিগত কমিশন ডিএসইর মতামতকে বিবেচনায় নিয়ে চূড়ান্ত গেজেট প্রকাশের কথা বলেছিল।

সম্প্রতি এ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয় কমিশন। এরপরে গত ২৭ সেপ্টেম্বর ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবর দেওয়া এক চিঠিতে এ বিষয়ে জানায় কমিশন। এছাড়া গেজেটে প্রকাশের জন্য প্রিন্টিংয়ে দেওয়া হয়েছে।

বিএসইসির সিদ্ধান্ত অনুযায়ি, এক্সচেঞ্জ অর্থবছরের প্রথম মাসের মধ্যে ট্রেক ইস্যুর জন্য বার্ষিক পরিকল্পনা কমিশনে দাখিল করবে। এছাড়া কমিশন ট্রেক ইস্যুর বিষয়ে সময় নির্দেশ প্রদান করতে পারবে। যা খসড়া বিধিমালায় ছিল না।

এদিকে এক্সচেঞ্জ ট্রেক সনদ ইস্যুর লক্ষ্যে ২টি দৈনিক (ইংরেজি ও বাংলা) সংবাদপত্রে ও এক্সচেঞ্জের ওয়েবসাইটে নতুন ট্রেক ইস্যুর জন্য দরখাস্ত করার বিজ্ঞপ্তি প্রদান করবে। এক্সচেঞ্জ ফরমে উল্লেখিত তথ্যাদির সমর্থনে প্রয়োজনে অতিরিক্ত তথ্যাদি এবং কাগজপত্র দাখিল করার জন্য বলতে পারবে। এরপরে এক্সচেঞ্জ ট্রেক প্রাপ্তির যোগ্যতা পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে যাচাই বাছাই করে সন্তুষ্ট হলে ট্রেক ইস্যু করবে। অন্যথায় নামঞ্জুর করবে এবং জানিয়ে দেবে। এছাড়া কোন ট্রেক যোগ্যতা হারালে বা এই বিধিমালার কোন শর্ত ভঙ্গ করলে, এক্সচেঞ্জ তাহার সনদ বাতিল করতে পারবে।

তবে ট্রেক ইস্যু নিয়ে সবচেয়ে বড় সমস্যা তৈরী হয়েছিল কমিশনের বিধিমালায় ফি নির্ধারন নিয়ে। যা চূড়ান্ত সিদ্ধান্তেও একই পরিমাণ রয়ে গেছে। এই ফি নিয়ে স্টক এক্সচেঞ্জকে ডিএসই ব্রোকার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ডিবিএ) থেকে লিগ্যাল নোটিশ পর্যন্ত পাঠানো হয়েছিল।

জানা গেছে, কোম্পানি, সংবিধিবদ্ধ সংস্থা বা কমিশনের অনুমোদিত কোন প্রতিষ্ঠান স্টক এক্সচেঞ্জের ট্রেক কিনতে পারবেন। এই ট্রেক পাওয়ার জন্য ১ লাখ টাকা ফিসহ এক্সচেঞ্জে আবেদন করতে হবে। আর ৫ লাখ টাকা দিতে হবে নিবন্ধন ফি হিসেবে। এই ফির পরিমাণ অনেক কম হয়েছে বলে শুরু থেকেই এই বিধিমালার বিরোধীতা করে আসছে ডিএসই।

তাদের মতে, সর্বশেষ ২০১৩ সালে ডিএসইর একটি মেম্বারশীপ বিক্রি করা হয়েছে ৩২ কোটি টাকার উপরে। এমনকি স্ট্যাটেজিক ইনভেস্টরদের কাছে ২৫ শতাংশ শেয়ার বিক্রির দর হিসাবে একটি ব্রোকারেজ হাউজের দাম রয়েছে ১৫ কোটিতে। সেখানে এখন নামমাত্র অর্থে ট্রেক ইস্যু করা হবে। এটা কিভাবে সম্ভব? তাহলে বর্তমান মেম্বারশীপের ভ্যালু কোথায় নেমে আসবে? এছাড়া আইনে ফি নির্ধারন স্টক এক্সচেঞ্জের কাছে দেওয়া হয়েছে।

বিএসইসির খসড়ার আলোকে মতামত দেওয়ার জন্য গত ৮ জুলাই ডিএসইর পর্ষদ ৫ কোটি টাকা নিবন্ধন ফিতে ট্রেক বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়। এছাড়া আবেদন ফি ১০ লাখ টাকা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। যা বিএসইসিকে জানানো হয়। তবে ডিএসইর এই মতামতকে গুরুত্ব দেয়নি কমিশন। তারা তাদের খসড়ায় প্রকাশিত ফি অপরিবর্তিত রেখে দিয়েছে।

বিগত কমিশন ট্রেক ইস্যুর নিবন্ধিন ফি ৫ লাখ টাকা নির্ধারন করে মতামত চেয়ে খসড়া প্রকাশের পর থেকেই বাজারকে এ বিষয়টি উত্তাল করে তুলেছিল। এই নিবন্ধন ফিতে ডিএসইর শেয়ারহোল্ডার পরিচালক রকিবুর রহমানের সম্মতি থাকলেও অন্যরা বিরোধীতা করে। এমনকি ডিএসইর শেয়ারহোল্ডাররাও এর বিরোধীতা করে।

তবে বিগত কমিশন চূড়ান্ত বিধিমালায় ডিএসইর মতামতকে গুরুত্ব দিয়ে নিবন্ধন ফি নির্ধারন করবে বলে জানিয়েছিল। তবে করোনাভাইরাসের কারনে তা করে যেতে পারেনি। তারা ট্রেক ইস্যুর বিধিমালার বিষয়ে পরবর্তীতে দায়িত্ব নেওয়া কমিশন সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানিয়ে যায়।

শুরু থেকেই আইনে ফি নির্ধারন স্টক এক্সচেঞ্জের হাতে দেওয়া হলেও কমিশন তা নির্ধারন করায় মেনে নিতে পারছেন না অনেকে। একটি গ্রুপকে ট্রেক পাইয়ে দেওয়ার জন্য এই ফি নির্ধারন করা হয়েছে বলে তারা ভাবছেন। যা থেকে অনেকে ব্যক্তিগতভাবে লাভবান হবেন। তাদের মতে, এতো কম টাকায় কেনা চাইবে ট্রেক নিতে। এর ফাঁকে একটি গ্রুপের লাভবান হওয়ার সুযোগ তৈরী হবে।

এদিকে চূড়ান্ত বিধিমালায় ট্রেক নেওয়ার জন্য কমপক্ষে ৫ কোটি টাকার পরিশোধিত মূলধন থাকতে হবে এবং স্টক এক্সচেঞ্জে ৩ কোটি টাকা জামানত দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। তবে বিদেশীদের সঙ্গে যৌথভাবে ট্রেক নেওয়ার ক্ষেত্রে পরিশোধিত মূলধন ৮ কোটি টাকা এবং শুধুমাত্র বিদেশীদের ক্ষেত্রে ১০ কোটি টাকার কথা বলা হয়েছে। আর জামানতের ক্ষেত্রে বিদেশীদের সঙ্গে যৌথভাবে ট্রেক নেওয়ার জন্য ৪ কোটি টাকা এবং শুধুমাত্র বিদেশীদের জন্য ৫ কোটি টাকার কথা বলা হয়েছে। আর ট্রেকের বার্ষিক ফি হিসেবে ১ লাখ টাকার কথা বলা হয়েছে।

তবে ডিএসইর পর্ষদ স্টক এক্সচেঞ্জে জামানত রাখার পরিমাণ ৫ কোটি টাকা করার মতামত দিয়েছিল। আর ট্রেক পেতে আবেদন ফি ১০ লাখ টাকা ও পরিশোধিত মূলধন কমপক্ষে ১০ কোটি টাকার কথা বলেছিল।

উল্লেখ্য, কোম্পানি, সংবিধিবদ্ধ সংস্থা বা কমিশনের অনুমোদিত কোন প্রতিষ্ঠান স্টক এক্সচেঞ্জের ট্রেক কিনতে পারবেন। গ্রাহকদের পক্ষে শেয়ার বেচা-কেনা করে দেওয়ার ব্যবসা করতে এই ট্রেক পাওয়া যাবে। তবে এই ট্রেকের মালিক স্টক এক্সচেঞ্জের শেয়ারহোল্ডার হবেন না। শুধুমাত্র শেয়ার ও ইউনিট বেচা-কেনা করার সুযোগ পাবেন। কোন প্রতিষ্ঠান ট্রেক পেলে তা হস্তান্তর করা যাবে না। আবার নিবন্ধন পাওয়ার এক বছরের মধ্যে সিকিউরিটিজ ও এক্সচেঞ্জ কমিশন (স্টক ডিলার, স্টক ব্রোকার ও অনুমোদিত প্রতিনিধি) বিধিমালা ২০০০ অনুযায়ী স্টক-ডিলার বা স্টক-ব্রোকার’র সনদ নিতে হবে। এই সনদ নেয়ার ৬ মাসের মধ্যে ব্যবসা শুরু করতে না পারলে ট্রেক বাতিল হয়ে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here