৫৮ ট্রেকের মধ্যে কাল প্রথম লেনদেন শুরু রহমান ইকুইটির

শেয়ারবাজারের উন্নয়ন ও সম্প্রসারণের জন্য সম্প্রতি দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ৫৮টি নতুন ট্রেককে (সিকিউরিটিজ হাউজ) অনুমোদন দিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। অনুমোদন পাওয়া এসব ট্রেকের মধ্যে রহমান ইকুইটি ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড প্রথম লেনদেন শুরু করতে যাচ্ছে আগামীকাল রবিবার, ৩০ জানুয়ারি।

ডিএসইর ট্রেক ডিপার্টমেন্ট সূত্রে জানা গেছে, আগামী সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) নতুন অনুমোদন পাওয়া ৫৮টি ট্রেকের মধ্যে ৪টির লেনদেন শুরু হতে পারে। আগামী সপ্তাহের যে কোন দিন প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের লেনদেন শুরু করতে চাইলে করতে পারবে। এই চার কোম্পানির মধ্যে রহমান ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডও রয়েছে বলে ডিএসইর এক কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছে শেয়ারনিউজকে।

রহমান ইকুইটি ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডের চিফ এক্সেকিউটিভ অফিসার (সিইও) কাজী মেহেদী আরাফাত শেয়ারনিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, শেয়ারবাজারের উন্নয়নকে বেগবান করতে আমরাও অংশিদার হতে চাই। তারই ধারাবাহিকতায় বিনিয়োগকারীদের সকল প্রকার সেবা প্রদানের মাধ্যমে এগিয়ে যেতে চাই।

রহমান ইক্যুইটির সিইও বলেন, ‘ইতোমধ্যে লেনদেন শুরু করার জন্য আমাদের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। বাণিজ্যিকভাবে আমাদের সিকিউরিটিজ হাউজ উদ্বোধনের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করবো রবিবার। এই হাউজ থেকে বিনিয়োগকারীদের উন্নয়ন এবং সহযোগিতায় যা যা করা দরকার, আমরা সকল প্রকার সেবা দিতে বদ্ধপরিকর।’

তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন সিকিউরিটিজ হাউজ বিনিয়োগ শিক্ষা কার্যক্রম অর্থের বিনিময়ে পরিচালনা করে থাকে। আমরা বিনিয়োগকারীদের সচেতনতার লক্ষ্যে সম্পূর্ণ ফ্রিতে বিনিয়োগ শিক্ষা কার্যক্রম প্রতি সপ্তাহেই পরিচালনা করবো। এতে করে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ নিয়ে তাদের সচেতনতা বৃদ্ধি পাবে। ফলে বিনিয়োগ করার ক্ষেত্রে তাদের ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমে যাবে।

মেহেদী আরাফাত আরও বলেন, আগামী ২ থেকে ৩ বছরের মধ্যে রহমান ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট শীর্ষ ২০টি হাউজের মধ্যে অবস্থান করে নিতে পারবে বলে আমি মনে করি। প্রাতিষ্ঠানিক, বিদেশী বিনিয়োগকারীসহ সকল পর্যায়ের বিনিয়োগকারীরা যেন সর্বোচ্চ পর্যায়ে বিনিয়োগে সুযোগ-সুবিধা পায়, সে বিষয়টি আমাদের মাথায় সবসময় থাকবে। অনলাইনে তারা খুব সহজেই যেন ট্রেড করতে পারে, সেই ফ্যাসিলিটি আমরা তৈরি করে দেবো। পাশাপাশি বিনিয়োগকারীদের জন্য পর্যাপ্ত মার্জিন ঋণ সুবিধা রাখা হবে। অর্থাৎ বিনিয়োগকারীদের সুবিধা-অসুবিধাগুলো সবার আগে অগ্রাধিকার পাবে। এছাড়াও প্রতিদিনের কোম্পানিগুলোর লেনদেনের রিসার্চ রিপোর্ট (rahmanequity.com) ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।

রহমান ইকুইটি ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডের চিফ এক্সেকিউটিভ অফিসার (সিইও) কাজী মেহেদী আরাফাত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ এবং ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটি থেকে এমবিএ সম্পন্ন করে প্রতিষ্ঠানটিতে সিইও হিসেবে যোগদান করেন। ২০০৭ সালে তিনি এবি ব্যাংকের রিসার্চ সেন্টারে কর্মজীবন শুরু করেন তিনি। এরপর একে একে বেশ কয়েকটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন। তিনি কস্ট টু কস্ট সিকিউরিটিজ, প্রিমিয়ার লিজিং সিকিউরিটিজ, স্টক বাংলাদেশ, প্রাইম ফাইন্যান্স সিকিউরিটিজ এবং এনএলআই সিকিউরিটিজে বিভিন্ন উর্ধতন পদে নিয়োজিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here