সোনালীর আইপিওতে আবেদনের জন্য যত বিনিয়োগ থাকতে হবে

আগামী ৩০ মে বীমা খাতের কোম্পানি সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) আবেদন নেওয়া শুরু হবে। আর তা চলবে ৩ জুন পর্যন্ত। এই কোম্পানির আইপিওতে আবেদন করতে হলে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের (নিবাসী বাংলাদেশি ও অনিবাসী বাংলাদেশী বা প্রবাসী) আগামী ১৯ মে তারিখে সেকেন্ডারি মার্কেটে ২০ হাজার টাকা বিনিয়োগ স্থিতি থাকতে হবে। ওই সময়ে সেকেন্ডারি মার্কেটে ২০ হাজার টাকার কম বিনিয়োগ থাকলে সোনালীর আইপিওতে আবেদন করা যাবে না।

অন্যদিকে যোগ্য বিনিয়োগকারী (Eligible Investor) তথা প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী কোঠায় আবেদনের জন্য আলোচিত সময়ে বিনিয়োগ থাকতে হবে কমপক্ষে এক কোটি টাকা। তবে স্বীকৃত পেনশন ফান্ড, প্রভিডেন্ট ফান্ড ও গ্র্যাচুইটি ফান্ডের ক্ষেত্রে ন্যুনতম বিনিয়োগ ৫০লাখ টাকা হলেই চলবে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

তথ্য মতে, সাধারণ বিনিয়োগকারীদের আইপিও আবেদনের ক্ষেত্রে ন্যূনতম চাঁদার পরিমাণ ১০ হাজার টাকা বা তার গুণিতক হবে।

বুক-বিল্ডিং পদ্ধতিতে আইপিও অনুমোদনের ক্ষেত্রে বিদ্যমান দ্বৈত সম্মতিপত্রের পরিবর্তে বিডিং এবং প্রসপেক্টাস প্রকাশের একসঙ্গে সম্মতিপত্র দেওয়া হবে।

গত বছরের ৯ ডিসেম্বর নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৭৫২তম সভায় কোম্পানিটির আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। কোম্পানিটি ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ১ কোটি ৯০ লাখ সাধারণ শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে ১৯ কোটি টাকা উত্তোলন করবে।

পুঁজিবাজার থেকে উত্তোলিত অর্থ দিয়ে কোম্পানিটি সরকারি ট্রেজারি বন্ড, ফিক্সড ডিপোজিট, বাজারে বিনিয়োগ এবং আইপিও খরচ খাতে ব্যয় করবে।

কোম্পানিটির ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ সমাপ্ত অর্থবছরে নিরীক্ষিত আর্থিক বিবরণী অনুযায়ী নেট অ্যাসেট ভ্যালু ২৫ টাকা ৪৭ পয়সা (কোম্পানিটি কোনো সম্পদ পুনঃমূল্যায়ন করেনি) এবং লাইফ ইন্স্যুরেন্স ফান্ডের পরিমাণ ৯৫ কোটি ৩৩ লাখ টাকা।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে আছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড এবং অগ্রণী ইক্যুইটি অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here