সূচকের উর্ধমুখী ধারায় রবিবারের লেনদেন শেষ

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : দীর্ঘ বিরতির পর পুঁজিবাজারের নতুন যাত্রার শুরুটি বেশ ভালই হয়েছে। প্রথম দিনে দেশের দুই স্টক এক্সচেঞ্জেই মূল্যসূচকের উর্ধমুখী ধারায় শেষ হয়েছে লেনদেন। আর এর মধ্য দিয়ে রুদ্ধশ্বাস অবস্থা থেকে মুক্তি মিলেছে আতঙ্কিত বিনিয়োগকারীদের। বাজারে একটু স্বস্তির হিমেল হাওয়া বয়ে গেছে। তবে বাজারের এই চিত্র যতটা না স্বাভাবিক, তারচেয়ে বেশি ছিল কৃত্রিমতায় পূর্ণ। কারণ ফ্লোর প্রাইসের কারণে শেয়ারের দাম কমতে পারেনি বলে সূচকে তার নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি। কিন্তু অল্প হলেও যে কয়েকটি কোম্পানির শেয়ারের দাম বেড়েছে তার প্রভাবে বেড়েছে সূচকও।

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের ঘোষিত সাধারণ ছুটি শেষে ৬৬ দিন পর রবিবার, ৩১ মে পুঁজিবাজারে আবারও লেনদেন শুরু হয়েছে। এই সময়ে দেশে ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বয়ে গেছে নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) তীব্র ঝড়। অর্থনীতিতে ঘটে গেছে নানা উলটপালট। পুঁজিবাজারও তীব্র দর পতনের ভেতর দিয়ে গেছে। তাই দেশের বিনিয়োগকারীদের মধ্যেও বাজারের সম্ভাব্য ধারা নিয়ে ছিল প্রবল আতঙ্ক। তবে প্রথম দিনে অন্তত এই আতঙ্ক কিছুটা হলেও কেটেছে।

রবিবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ৫২ দশমিক ১৫ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৩০ শতাংশ বেড়েছে। দিন শেষে সূচকটির অবস্থান দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৬০ দশমিক ৪৪ পয়েন্ট।

এদিন ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৩১ পয়েন্ট বেড়ে ৯৫২ পয়েন্টে এবং ডিএসই–৩০ সূচক ৩৪ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৩৬৫ পয়েন্টে উন্নীত হয়।

দিনভর লেনদেন হওয়া ৩৩২টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৬০টির, দর কমেছে ৬৮টির এবং দর পরিবর্তীত রয়েছে ১৯৫টির।

ডিএসইতে ১৪৩ কোটি ২৯ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিটের লেনদেন হয়েছে। যা আগের দিন থেকে ২০৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকা কম। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৩৪৮ কোটি ১৩ লাখ টাকার।

রবিবার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সব সূচক বেড়েছে। সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৪১ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ হাজার ৪৬৯ পয়েন্টে উন্নীত হয়েছে।

সিএসইতে ১০৯টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। তার মধ্যে ৩১টির দর বেড়েছে, কমেছে ২৪টির আর ৫৪টির দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here