সিপিএলে দলকে প্লেঅফে তুললেন মাহমুদউল্লাহ

স্টাফ রিপোর্টার:  টানা চার বলে দুটি চার ও দুটি ছক্কা মেরে ১১ বলে অপরাজিত ২৮ রানের ইনিংস খেলেছ তাঁর নিজ নল সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস প্যাট্রিয়টসকে সিপিএলের প্লে অফ রাউন্ডে তুলেছেন মাহমুদউল্লাহ ।

মাহমুদউল্লাহ জানেন, সুযোগ বেশি মিলবে না তাই যখনই যতটুকু মিলবে, দু হাত ভরে নিতে হবে। সিপিএলের দলে তাঁর ভূমিকা নেপথ্য নায়কের। সিপিএলে সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস প্যাট্রিয়টসকে প্লে অফে তুলে আবার যেমন আলোচনায় মাহমুদউল্লাহ।

কালকের ম্যাচ হেরে গেলে অনিশ্চয়তা পড়ে যেত প্যাট্রিয়টসের পরের রাউন্ড। কাজটাও সহজ ছিল না। জ্যামাইকা তালাওয়াশ প্রথমে ব্যাট করে তুলেছিল ২০৬ রান। বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে প্যাট্রিয়টসের নতুন লক্ষ্য নির্ধারিত হয় ১১ ওভারে ১১৮।

ক্রিস গেইলের ২৪ বলে ৪১ আর সমান বলে ফন ডার ডুসেনের ৪৫ রানের ইনিংস দুটি কাজ অনেক সহজ করে দেয়। তবে শেষ পর্যন্ত প্যাট্রিয়টসকে ৫ বল বাকি থাকতেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেয় মাহমুদউল্লাহর ১১ বলে ২৮ রানের বিধ্বংসী ইনিংস।

১৮ বলে ৪৩ রান দরকার, এমন সমীকরণে নবম ওভারে ডুসেন আর মাহমুদউল্লাহ মিলে তোলেন ২৭ রান। ওভারের শেষ বল বলে স্ট্রাইকে থেকে দুটি চারের পর এক ছক্কা হাঁকান মাহমুদউল্লাহ। পরের ওভারে স্ট্রাইকে ফিরতেই আবার হাঁকান ছক্কা তিনি। তাতেই শেষ ওভারে লক্ষ্য গিয়ে দাঁড়ায় মাত্র ২ রানে। প্রথম বলে দুই রান নিয়ে ম্যাচটা শেষ করেন মাহমুদউল্লাহই।

সেরার পুরস্কার না পেলেও মাহমুদউল্লাহও ম্যাচের নায়ক । আড়ালের নায়ক থেকে যাওয়াতেই যে বেশি আনন্দ মাহমুদউল্লাহর। ম্যাচ শেষে বলেছেন, ‘দল অবদান রাখতে পেরে আমি খুশি। আজ শুরু থেকেই আমার লক্ষ্য ছিল বলটা দেখেশুনে মারব। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচটাও এখন আমরা জিততে চাই। জয়ের ধারায় থেকেই খেলতে চাই প্লে অফে।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর শেষে সিপিএল খেলার জন্য দেশে ফেরা হয়নি মাহমুদউল্লাহর। ঈদও করেছেন ক্যারিবীয় দ্বীপে। প্যাট্রিয়টসের হয়ে এমন জায়গায় খেলেছেন, ব্যাট হাতে খুব বেশি সুযোগ মেলে না। বল হাতেও না। কিন্তু তবু লোয়ার মিডল অর্ডারে নেমে বেশ কয়েকটি ক্যামিও ইনিংস খেলেছেন। এর মধ্যে এক ম্যাচে বল হাতেও আলো ছড়িয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here