সিএসইতে নিয়ালকো অ্যালয়সের লেনদেন শুরু ১০ জুন

প্রথম অনুমোদন পাওয়া এসএমই কোম্পানি নিয়ালকো অ্যালয়স লিমিটেডের লেনদেন শুরুর তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। আগামী ১০ জুন, বৃহস্পতিবার কোম্পানিটি চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) এসএমই প্লাটফর্মে লেনদেন শুরু করবে। কোম্পানিটির লেনদেন হবে ‘এন’ ক্যাটাগরিতে। কোম্পানি আইডি হবে‘১৬৬০’। সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, দেশের স্টক এক্সচেঞ্জগুলোতে ক্ষুদ্র ও মাঝারি (এসএমই) শিল্প প্রতিষ্ঠান তালিকাভুক্তির জন্য প্রায় দুই বছর আগে একটি স্বতন্ত্র প্লাটফর্ম চালু করা হয়। কিন্তু বিভিন্ন কারণে লেনদেন চালু হয়নি। তবে এবার নিয়ালকো অ্যালয়সের মাধ্যমে প্রথম লেনদেন শুরু করবে সিএসইর এসএমই প্লাটফর্ম। পরবর্তীতে নিয়ালকো ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেনের জন্য আবেদন করবে। অনুমোদন পেলে ডিএসইতেও কোম্পানিটির লেনদেন শুরু হবে। তবে প্রথম লেনদেনের মাধ্যমে সিএসইর এসএমই প্লাটফর্ম ইতিহাস গড়তে যাচ্ছে।

এসএমই প্লাটফর্মে লেনদেনের তারিখ হতে পরবর্তী তিন বছর ইস্যুয়ার কোম্পানি কোনো বোনাস শেয়ার ইস্যু করতে পারবে না। নিয়ম অনুযায়ী, শুধু যোগ্য বিনিয়োগকারী বা প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা এসব কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়োগ করতে পারবেন। পাশাপাশি পুঁজিবাজারে যেসব দেশি বা বিদেশি ব্যক্তির বাজারমূল্যে অন্তত কোটি টাকার বা তারচেয়ে বেশি বিনিয়োগ আছে তাদেরকে যোগ্য বিনিয়োগকারী হিসেবে বিবেচনা করা হবে। তারাই নিয়ালকো অ্যালয়সের মতো এসএমই প্লাটফর্মে তালিকাভুক্ত শেয়ারে বিনিয়োগ করতে পারবেন।

এর আগে গত ১ জুন কোম্পানিটির শেয়ার বিনিয়োগকারীদের হিসাবে জমা হয়েছে। কোম্পানিটির কিউআইওতে গত ১৬ মে থেকে ২০ মে পর্যন্ত আবেদন জমা নেওয়া হয়। কোম্পানির ৭ কোটি ৫০ লাখ টাকার চাহিদার বিপরীতে ১৩৪ কোটি ৩৯ লাখ টাকার আবেদন জমা পড়েছে। যা ১৭.৯১ গুণ বেশি। আবেদনকারী যোগ্য বিনিয়োগকারীর সংখ্যা ৩০৯ জন।

প্রথমবারের মতো এসএমই কোম্পানি নিয়ালকো অ্যালয়সকে অর্থ উত্তোলনের জন্য ৭৭০ তম সভায় কমিশন সভায় অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। নিয়ালকো অ্যালয়স কিউআইও’র মাধ্যমে শেয়ারবাজার থেকে ৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা উত্তোলন করেছে। ২০১৮ সালের রুলস অনুযায়ী কোম্পানিটি প্রতিটি ১০ টাকা করে ৭৫ লাখ শেয়ার যোগ্য বিনিয়োগকারীদের কাছে ইস্যুর মাধ্যমে এই অর্থ উত্তোলন করে।

শেয়ারবাজার থেকে উত্তোলিত অর্থ দিয়ে কোম্পানিটি ভূমি উন্নয়ন, যন্ত্রপাতি ক্রয় এবং আইপিও খরচ খাতে ব্যয় করবে। কোম্পানিটি ব্রোঞ্জ, পিতল, মেটালসহ অনেক ধরনের পণ্য উৎপাদন করে। কোম্পানিটি ২০১১ সালের ২১ জুন নিবন্ধিত হলেও ২০১৫ সালে ৫ জুলাই কাজ শুরু করে।

২০২০ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত হিসাব অনুযায়ী, কোম্পানির শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ০.৯১ টাকা এবং পুন:মূল্যায়ন সঞ্চিতি ছাড়া নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১২.৪৩ টাকা। কোম্পানিাটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে এমটিবি ক্যাপিটাল লিমিটেড।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here