শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলার ঘটনায় তামিমের শোক

স্টাফ রিপোর্টার : খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের বড় ধর্মীয় উৎসব ইস্টার সানডে উদযাপন হচ্ছিলো পুরো শ্রীলঙ্কা জুড়ে। এরই মাঝে সেখানে একাধিক গির্জা ও অভিজাত হোটেলসহ বিভিন্ন স্থানে ভয়াবহ বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। এতে নিহতের সংখ্যা ১৫০ ছাড়িয়েছে। আহত হয়েছেন ৫ শতাধিকেরও বেশি মানুষ। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।

এমন ঘটনায় পুরো বিশ্বের মতো ক্রিকেট বিশ্বও শোকস্তব্ধ হয়ে পড়েছে। বিশ্বের অনেক দেশের ক্রিকেটারদের পাশাপাশি শোক জানিয়েছেন বাংলাদেশের ওপেনার তামিম ইকবাল। রবিবার, ২১ এপ্রিল এই ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এক পোস্টে লেখেন ‘সকালে শ্রীলঙ্কার বিভিন্ন স্থানে এত নিরিহ মানুষের প্রানহানি দেখে আমার মন ভেঙে গেছে। নিহত, আহত ও তাদের পরিবারের জন্য রইলো অনেক অনেক দোয়া। ভালোবাসা ও মানবতা সব কিছুকে জয় করতে পারে।’

শ্রীলঙ্কান সংবাদমাধ্যম বলছে, রোববার খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের বড় ধর্মীয় উৎসব ইস্টার সানডে উদযাপন করা হচ্ছিলো গির্জাগুলোতে। এর মাঝে সকাল সাড়ে ৮টার দিকে কলম্বোর সেন্ট অ্যান্থনি চার্চে বোমা হামলা হয়।

এর আধাঘণ্টার মধ্যেই রাজধানী থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত সেন্ট সেবাস্টিন চার্চ ও ২৫০ কিলোমিটার দূরে বাট্টিকালোয়ার জিওন চার্চেও বোমা হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা।

এছাড়া রাজধানী কলম্বোর কিংসবারি, সাংগ্রিলা এবং সিনামোন গ্র্যান্ড হোটেলেও তিনটি বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ সময় ওই হোটেলে অসংখ্য বিদেশি নাগরিক ছিলেন।

পুলিশের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম বলছে, পৃথক হামলায় এ পর্যন্ত ১৫৬ জন নিহত হয়েছেন। আর ৫০০ এর বেশি আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। আর দুপুরের হামলায় আরও দুইজনসহ মোট ১৫৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।

দুপুরে দেশটির রাজধানী কলম্বোর দেহিওয়ালা জেলার উপকূলের একটি ছোট্ট হোটেলে সপ্তমবারের মতো বিস্ফোরক হামলা হয়। আরেকটি হামলা হয়েছে কলম্বোর দেমাতাগোদা জেলায়। এ ঘটনায় দুইজনের মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় কোনো বাংলাদেশি নাগরিক হতাহত হয়েছেন কিনা তা এখনও নিশ্চিত নয় কলোম্বোয় নিযুক্ত বাংলাদেশ হাইকমিশন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here