‘শেয়ার দর কমার পেছনে কোম্পানির হস্তক্ষেপ নেই’

স্টাফ রিপোর্টার : সদ্য লেনদেনে আসা রিং শাইন টেক্সটাইলস লিমিটেডের শেয়ার দর ফেসভ্যালুর নিচে অবস্থান করছে। তবে ফেসভ্যালুর নিচে শেয়ার দর আসলেও এখানে কোম্পানির কোন হস্তক্ষেপ নাই বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন কোম্পানি সচিব আশরাফ আলি। মার্কেটে লেনদেনের উপর ভিত্তি করেই মূলত শেয়ার দর ফেসভ্যালুর নিচে অবস্থান করছে বলে তিনি জানান। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

তথ্য মতে, কোম্পানিটি গত ১২ ডিসেম্বর থেকে দেশের উভয় পুঁজিবাজারে লেনদেন শুরু করে। প্রথম দিন ১৫ টাকা দিয়ে লেনদেন শুরু করে দিন শেষে নতুন নিয়মে সার্কিট ব্রেকার অনুযায়ী ৫০ শতাংশ বা ৫ টাকাই বেড়ে ১৫ টাকাতে থাকে। এর পরের দিন থেকেই কমতে থাকে কোম্পানির শেয়ার দর। মাঝে সামান্য বাড়লেও শেষ পর্যন্ত পতন ঠেকানো যায়নি শেয়ারটির।

বাজার চিত্র অনুযায়ী, সোবমার, ০৭ জানুয়ারি লেনদেন শেষে কোম্পানিটির শেয়ার মূল্য অবস্থান করছে মাত্র ৯ টাকা ৬০ পয়সায়। এরআগে সকালে কোম্পানিটি লেনদেন শুরু করে ১০ টাকা ২০ পয়সা থেকে। দিন শেষে শেয়ারটির দর ৬০ পয়সা বা ৫ দশমিক ৮৮ শতাংশ কমে যায়। কোম্পানিটি ২ হাজার ৮৮৩ বারে মোট  ৫১ লাখ ৩ হাজার ১৯৩ টি শেয়ার লেনদেন করে। যার বাজার মূল্য ৬ কোটি ১০ লাখ ৩৪ হাজার টাকা।

এছাড়া কোম্পানি লেনদেন শুরুর আগে শেয়ারহোল্ডারদের জন্য বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করে। লভ্যাংশ ঘোষনার আইন অনুযায়ী কোম্পানির প্রথম লেনদেনে কোনো সার্কিট ব্রেকার থাকবে না। কিন্তু তার আগেই বিএসইসি লেনদেনের প্রথম দিন থেকেই সার্কিট ব্রেকার নির্ধারণ করে দেয়। আর এ আইনী জটিলতার কারণেই কোম্পানির লেনদেন দেড়িতে শুরু হয়।

এদিকে আশরাফ আলি আরও বলেন, প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) লটারির পূর্বে বিগত ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত ইজিএমে কোম্পানির অনুমোদিত মূলধন ৪৪০ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫৪০ কোটি টাকা করা হয়। পরবর্তীতে রেজিস্টার অব জয়েন্ট স্টক কোম্পানি (আরজেএসসি) থেকে এই মূলধন বাড়ানোর অনুমোদন নেয়া হয়।

উল্লেখ্য, কোম্পানিটি ২০১৯ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। বাজার থেকে কোম্পানি মোট ১৫০ কোটি উত্তোলন করে। কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন রয়েছে ৪৩৫ কোটি টাকা। এছাড়া কোম্পানির মোট শেয়ার রয়েছে ৪৩ কোটি ৫০ লাখ ৫৪ হাজার ৮২০টি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here