স্টাফ রিপোর্টার: ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসইতে) ১১ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার সবচেয়ে বেশি টাকার লেনদেন হয়েছে ফুয়েল ও পাওয়ার খাতে। মার্কেটের মোট লেনদেন গত দিনের তুলনায় কমেছে। একই সাথে গত দিনের তুলনায় ফুয়েল ও পাওয়ার খাতের লেনদেনও ৩৯.৬৫% কমেছে। মোট লেনদেনের দিক থেকে ২৭.৫% লেনদেন নিয়ে খাতটি আজ ডিএসইতে শীর্ষে অবস্থান করছে। ডিএসইতে গতকাল এই খাতের অবদান ছিল ৩৬.৪১% যা আজকের দিনের তুলনায় ৮.৯১% বেশি।

এই খাতে আজ সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে সামিট পাওয়ার লিমিটেডের শেয়ার। কোম্পানিটি আজ মোট ৫৯ কোটি ৪০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন করেছে যা মোট লেনদেনের প্রায় ৯.২১%। এদিকে গত কালকের তুলনায় শেয়ারটির মূল্য ১.৮৬% বৃদ্ধি পেয়েছে।

লেনদেনের দিক থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিলো একই খাতের আরেকটি কোম্পানি খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড। কোম্পানিটির আজ ৫৭ কোটি ৩০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে যা মোট লেনদেনের ৮.৮৮%।

লেনদেনের দিক থেকে তৃতীয় অবস্থানে ছিলো ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড। এই কোম্পানিটিও ফুয়েল ও পাওয়ার খাতের অন্তর্ভুক্ত। কোম্পানিটির আজ ৩৭ কোটি ৯০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে যা মোট লেনদেনের ৫.৮৮%।

লেনদেনে অবদানের ভিত্তিতে দেখলে আজকে দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে ছিল যথাক্রমে টেক্সটাইল এবং ইঞ্জিনিয়ারিং খাত।

টেক্সটাইল খাত: লেনদেনের ভিত্তিতে টেক্সটাইল খাতের অবদান ছিল আজ ১৫.০৬% যা গত দিনের চেয়ে ১.৩৪% বেশি। এই খাতে আজও সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ড্রাগন সোয়েটার এন্ড স্পিনিং লিমিটেডের শেয়ার। কোম্পানিটির আজ ১৫ কোটি ৭২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে যা মোট লেনদেনের প্রায় ২.৪৪%। তবে শেয়ারটির মূল্য গত দিনের চেয়ে ১.৪৪% হ্রাস পেয়েছে।

ইঞ্জিনিয়ারিং খাত: মোট লেনদেনে এই খাতের অবদান ছিল ১০.৮৮% যা গত দিনের চেয়ে ০.২৭% বেশি। এই খাতে আজ সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে বিবিএস কেবলস লিমিটেডের শেয়ার। কোম্পানিটির আজ ১২ কোটি ৬০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে যা মোট লেনদেনের ১.৯৫%। এদিকে শেয়ারটির মূল্য গতদিনের তুলনায় ১.২৯% হ্রাস পেয়েছে।

বিবিধ খাত: এদিকে আজ বিবিধ খাতের অবদান গত দিনের তুলনায় ৪.৪৭ বৃদ্ধি পেয়েছে। গতকাল এই খাতের অবদনা ছিল ২.৫% যা আজ হয়েছে ৬.৯৭%। এই খাতে আজ সবচেয়ে বেশি টাকার লেনদেন হয়েছে বেক্সিমকো লিমিটেডের শেয়ার। কোম্পানিটির আজ মোট ২৮ কোটি ১৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে যা মোট লেনদেনের ৪.৩৬%।

এদিকে আজ ইঞ্জিনিয়ারিং খাতের মোট ৩৫টি কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১১টির এবং কমেছে ২২টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২টি কোম্পানি। ফুয়েল ও পাওয়ার খাতের ১৯টি কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ৭টির এবং কমেছে ১০টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২টি কোম্পানির। টেক্সটাইল খাতের ৫০টি কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১৩টির, কমেছে ২৫টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ১২টি কোম্পানির।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here