‘বিদেশী বিনিয়োগে দেশের ক্যাপিটাল মার্কেটের ডেভলপমেন্ট হবে’

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নির্বাহী পরিচালক মাহবুবুল আলম বলেছেন, বিদেশী বিনিয়োগকারী এবং এনআরবিদের সামনে আমাদের ক্যাপিটাল মার্কেট তুলে ধরতে হবে। রোড শো’র মাধ্যমে বিদেশী বিনিয়োগ অনেক বাড়বে এবং ক্যাপিটাল মার্কেটের ডেভলমেন্ট হবে।

আরব আমিরাতের দুবাইতে প্রথম ‘রোড শো’উপলক্ষে মঙ্গলবার, ০২ ফেব্রুয়ারি বেলা সাড়ে ১১টায় আগারগাঁওয়ে বিএসইসির নিজস্ব কার্যালয়ের মাল্টিপারপাস হলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

মাহবুব আলম বলেন, বাংলাদেশের ইকোনোমিক গ্রোথ খুবই ভালো। দেশের ইকোনোমিক গ্রোথের সাথে আমাদের ক্যাপিটাল মার্কেট পিছিয়ে আছে। বিভিন্ন দেশের ইকোনোমিক গ্রোথের সাথে সাথে কিন্তু ক্যাপিটাল মার্কেট ডেভলেপ করে এবং ক্যাপিটাল মার্কেট থেকে মূলত লংটার্ম ফাইন্যান্সিং হয়ে থাকে। আমরা আমাদের অন্যান্য উন্নত ইকোনোমির মতো ডেভলপিং হয়েছে সেইভাবে আমাদের ক্যাপিটাল মার্কেটে কন্ট্রিবিউশনটা বাড়াতে চাই। ফাইন্যান্সিংয়ের জন্য দেশি বিনিয়োগ বাড়ছে তবে বিদেশী বিনিয়োগটা কমে হচ্ছে। কারণ এখানে আমাদের যারা এনআরবিরা আছেন বিদেশে। আপনারা যানেন আমাদের ইদানিং রেমিটেন্স বেড়েছে করোনার পরেও। আর করোনা পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন দেশে ইকোনোমিকে কিন্তু অনেক ক্রাইসিস আছে। ইনভেস্টমেন্ট বা রিটার্ন ইনভেস্টমেন্ট অনেক দেশে নেগেটিভ হয়ে গেছে। কাজেই ফরেন ইনভেস্টররা বাংলাদেশের প্রতি ইন্টারেস্টেড। বাংলাদেশ কিন্তু করোনার পরে অনেক তারাতারি এটাকে রিকভার করেছে এবং আমরা আবার গ্রোথ স্টেজে চলে গেছি। আমাদের রিটার্ন ইনভেস্টমেন্ট সেটাও কিন্তু ভালো।

বিসইসির এই নির্বাহী পরিচালক বলেন, আমাদের দেশে যে ইনফ্রাসক্ট্রাচার প্রজেস্ট হচ্ছে, ব্যাপক কাজ চলছে আমাদের এখানে। এই ইনফ্রাসক্ট্রাকচার প্রজেস্ট এবং বিভিন্ন লংটার্ম প্রজেক্ট যেগুলো আছে সেগুলোতে ফাইন্যান্সিংয়ের জন্য আমাদের এখান থেকে এখন, বাংলাদেশে যেটা হয়ে থাকে সেটা মূলত এতোদিন ব্যাংকিং সেক্টরের এবং গভর্নমেন্ট সেক্টর গভর্নমেন্ট করে কিছু বৈদেশিক সাহায্যে নেয়। বেসিক্যালি কিন্তু লোন ওপেন বাজার থেকে এই ব্যয় নির্বাহ করা হয়। এইযে হিউজ ইনফ্রাসক্ট্রাচার ডেভলপমেন্ট এবং জিডিপিতে বরাদ্দ এটা কিন্তু শুধুমাত্র রেভিনিউ বাজেট দিয়ে কিন্তু বেশিদিন চলতে পারে না। পাশাপাশি প্রাইভেট সেক্টল যেভাবে ডেভলপ করছে আমাদের দেশে এই প্রাইভেট সেক্টরে যে ফাইন্যান্সিং সেটা কিন্তু ব্যাংকিং সেক্টর আর সাপ্লাই দিতে পারছে না। ব্যাংকিং সেক্টর সিক হয়ে যাচ্ছে আস্তে আস্তে।

মাহবুব আলম বলেন, ক্যাপিটাল মার্কেটের গ্রোথ গত কয়েক মাসে অনেক ভালো। সুতারাং এখানে বিদেশী বিনিয়োগকারীরা এবং আমাদের যারা এনআরবিরা আছেন তারা শো করছেন। আমাদের কাজ হচ্ছে তাদের এই আগ্রহটা কাজে লাগানো। তাদের সামনে আমাদের ক্যাপিটাল মার্কেটকে তুলে ধরা। আমাদের ক্যাপিটাল মার্কেটে নতুন নতুন প্রোডাক্ট আসছে। এতো দিন এই প্রোডাক্টগুলো আমাদের ক্যাপিটাল মার্কেটে ইক্যুইটি বেচছিল। বাট এখন আমরা নতুন নতুন প্রোডাক্ট ইনট্রুডিইস করছি। এখানে বন্ড মার্কেট ডেভলপমেন্টের জন্য কাজ চলছে। সুকুকসহ অন্যান্য প্রোডাক্ট নিয়েও কাজ করছে। লংটার্ম ইনভেস্টমেন্টের জন্য আমাদের এই প্রোডাক্টগুলো দরকার। এই প্রোডাক্টগুলোতে ইনভেস্টমেন্ট করার জন্য যে সুযোগ আছে আমরা সেই সব তুলে ধরব বিদেশী এবং এনআরবিদের কাছে। আমরা আশা করছি এই রোড শো’র মাধ্যমে আমাদের বিদেশী বিনিয়োগ অনেক বাড়বে এবং ক্যাপিটাল মার্কেটের ডেভলমেন্ট হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here