পুঁজিবাজারে আসতে চায় সিনেসিস আইটি

প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজারে আসতে চায় দেশের অন্যতম শীর্ষ তথ্য-প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান সিনেসিস আইটি লিমিটেড। এ লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানটি এএএ ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের সাথে একটি ইস্যু ম্যানেজমেন্ট চুক্তি করেছে। গত রবিবার, ২২ আগস্ট প্রতিষ্ঠান দুটির মধ্যে এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। সিনেসিস আইটি সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

সিনেসিস আইটি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোহরাব আহমেদ চৌধুরী এবং এএএ ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ওবায়দুর রহমান এফসিএস নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে এতে স্বাক্ষর করেন।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে এএএ ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের পরিচালক আবদুস সালাম খান, ম্যানেজার আহমেদ আশিকুর রহমান সি.এফ.এ, ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার অ্যান্ড হেড অব ইস্যু ম্যানেজমেন্ট মোহাম্মদ খালিদ হোসেন এবং সিনেসিস আইটি লিমিটেডের ভাইস-চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ, পরিচালক আব্দুর রশিদ, ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার এ কে এম করিম উশ শান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সিনেসিস আইটি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোহরাব আহমেদ চৌধুরী অর্থসূচককে বলেন, আইপিওর মাধ্যমে অর্থ উত্তোলন করে আমরা আমাদের ব্যবসা সম্প্রসারণ করতে চাই। দেশে তথ্য-প্রযুক্তি খাতের সম্ভাবনা সীমাহীন। আমরা এই সম্ভাবনা কাজে লাগাতে চাই। দেশের সীমানা পেরিয়ে বিদেশেও আমাদের সেবা সম্প্রসারিত করতে চাই আমরা। পুঁজিবাজারে আসার মাধ্যমে আমাদের সাফল্য এই বাজারের বিনিয়োগকারী তথা দেশের মানুষের সাথে ভাগাভাগি করতে চাই।

তিনি বলেন, এএএ ফিনান্সের সাথে চুক্তি করতে পেরে আমরা খুবই আনন্দিত। কারণ এএএ ফিনান্সের রয়েছে ১০০ টিরও বেশি প্রতিষ্ঠানকে আইপিওতে নিয়ে আসার সফল অভিজ্ঞতা। আশা করি এই চুক্তির মাধ্যমে আমরা স্বল্প সময়ের মধ্যেই পুঁজিবাজারে অভিষিক্ত হবো।

এএএ ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিইও মোহাম্মদ ওবায়দুর রহমান এফসিএস বলেন, সিনেসিস এর সাথে যুক্ত হতে পেরে আমরা খুবই আনন্দিত। আমাদের বিশ্বাস সিনেসিস আইটি পুঁজিবাজারে এলে দেশের পুঁজি বাজারের আরও সম্প্রসারণ হবে এবং এধরনের আরও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলো পুঁজিবাজারে আসতে আগ্রহী হবে।

উল্লেখ, সিনেসিস আইটি লিমিটেড দেশের অন্যতম শীর্ষ তথ্য-প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান। সরকারি-বেসরকারি খাতের বেশ কিছু বড় প্রকল্প বাস্তবায়নের সাফল্য রয়েছে তাদের। এর মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত প্রকল্প হচ্ছে-ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি রেজিস্টার (এনইআইআর)। অবৈধ ও নকল মোবাইল ফোনের ব্যবহার বন্ধে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) নেওয়া এই প্রকল্পের সফটওয়্যার সলিউশন দিয়েছে সিনেসিস আইটি। সেন্ট্রাল বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশন মনিটরিং প্ল্যাটফরমসহ আরও কিছু বড় প্রকল্প বাস্তবায়নের অভিজ্ঞতা রয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

তথ্য প্রযুক্তি খাতে অবদানের জন্য প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশ সরকারের আইসিটি মন্ত্রণালয়ের প্রবর্তন করা ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার, বেসিসের ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডস, আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়নের (আইটিইউ) ওয়ার্ল্ড সামিট অন ইনফরমেশন সোসাইটি-উইসিস পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরস্কার পেয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here