দৈনিক লেনদেন ৩ থেকে ৫ হাজার কোটি টাকায় নিতে কাজ করতে হবে : বিএসইসি চেয়ারম্যান

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম বলেন, শেয়ারবাজারে বৈচিত্র আনতে হবে। সারাক্ষণ শুধু সেকেন্ডারি মার্কেট নিয়ে থাকলে হবে না। আমাদেরকে এই মার্কেটটাকে অনেক বড় করতে হবে। দৈনিক ১ হাজার কোটি টাকার লেনদেন কোন লেনদেন না। এই লেনদেনকে দ্রুত ৩-৫ হাজার কোটিতে নেওয়ার জন্য কাজ করতে হবে।

শনিবার, ১২ সেপ্টেম্বর শেয়ারবাজার নিয়ে ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্টস ফোরাম (সিএমজেএফ) ও বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) আয়োজিত এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএমবিএর প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট মোঃ মনিরুজ্জামান।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, আমরা ইক্যুইটি ভিত্তিক শেয়ারবাজার থেকে বের হওয়ার চেষ্টা করছি। গত সাড়ে ৩ মাসে প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকার সাবঅর্ডিনেটে এবং পারপিচুয়াল বন্ড এবং ৮৫০ কোটি টাকার জিরো কূপন বন্ডের অনুমোদন দিয়েছি। এতে করে বাজারের সব কিছু বৃদ্ধি পাবে।

শেয়ারবাজারের উন্নয়নে বিএসইসি একা কিছু করতে পারবে না বলে জানান তিনি। এখানে একটি টিম হয়ে সবাইকে কাজ করতে হবে। এরমধ্যে দু-একজন করবে না, কিন্তু তাতে করে লক্ষ্যচ্যুত হয় না।

তিনি বলেন, আমরা ব্যবসাটাকে সহজ করে দিতে চাই। এই সহজ করতে গিয়ে কিছু দুষ্ট লোক যদি নিয়মনীতি না মেনে অপকর্মে লিপ্ত হয় এবং ওই জাতীয় ২-৫ শতাংশ মানুষের জন্য সাধারণ বিনিয়োগকারীদের ক্ষতিগ্রস্থ হতে দেব না। সেই সুযোগ ইনশাআল্লাহ আর হবে না। এ নিয়ে আমরা সবাইকে আশ্বস্ত করতে পারি। এ ব্যাপারে আপনাদেরকেও নিজ নিজ অবস্থান থেকে কাজ করতে হবে। যাতে করে কাউকে ক্ষতি করে বা চালাকি করে টাকা পয়সা নিয়ে যেতে না পারে।

বিএসইসির এই চেয়ারম্যান বলেন, আমরা যদি শতভাগ সুশাসন নিশ্চিত করতে না পারি, তাহলে কেনো একজন আমাদের কথায় শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করার ঝুকিঁ নেবে। কেনো তারা তাদের কষ্টার্জিত অর্থ শেয়ারবাজারে নিয়ে আসবে। যদি আমরা তাদের অর্থের নিরাপত্তা দিতে না পারি, রিটার্ন দিতে না পারি, তাহলে কেনো তারা আমাদের কথায় আসবে। সুতরাং আমরা যদি কাউকে আস্থায় নিয়ে আসতে পারি, তাহলে তারা বিনিয়োগে আসবে।

স্বতন্ত্র পরিচালকদের নিয়ে আগামিতে কিছু কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হবে বলে জানান তিনি। আইনে কাভার করলে কিছু স্বতন্ত্র পরিচালককে সরিয়ে দিতে হতে পারে। তাদের জায়গায় সঠিক স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগ দেওয়া হবে। এই স্বতন্ত্র পরিচালকদেরকে যে উদ্দেশ্যে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে, সেটা এখনো পূরন হয়নি। আমরা এই সপ্তাহে স্বতন্ত্র পরিচালকদের অনলাইনে আবেদন নেওয়া শুরু করব। যারা যোগ্য হবেন, তাদেরকে নেওয়া হবে।

শিবলী রুবাইয়াত বলেন, বিনিয়োগকারীদের থেকে টাকা নেওয়ার পরে যেসব কোম্পানির কার্যক্রম ঠিকভাবে চলছে না, যারা হঠাৎ করে বন্ধ করে চলে গেছেন, যাদের অফিস তালা মারা, যারা বিভিন্নভাবে বিনিয়োগকারীদের ঠকানোর চেষ্টা করেছেন, সেসব কোম্পানির পর্ষদ আমাদের ভেঙ্গে দিতে হতে পারে। সেখানে স্বতন্ত্র পরিচালকদের সংখ্যা বাড়িয়ে স্বচ্ছতা আনতে হবে। নতুন করে কাউকে আর এই সুযোগ দিতে চাই না।

তিনি বলেন, কাউকে জরিমানা করতে আমাদের ভালো লাগে না। তারপরেও করতে হয়। এর মাধ্যমে আমরা বাজারে একটা ম্যাসেজ দিতে চাই যে, ভবিষ্যতে অন্যায় করে কেউ ছাড় পাবে না।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) চেয়ারম্যান ও সাবেক সচিব মোঃ ইউনুসুর রহমান, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) চেয়ারম্যান আসিফ ইব্রাহীম, ডিএসই ব্রোকারস অ্যাসোসিয়েশনের (ডিবিএ) প্রেসিডেন্ট শরীফ আনোয়ার হোসেইন এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ড অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট হাসান ইমান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here