টপ লুজারে জাঙ্ক শেয়ারের ছড়াছড়ি, আতঙ্কে ট্রেডাররা

স্টাফ রিপোর্টার:  গত বুধবার ডিএসইর পরিচালনা পর্ষদ সভায় রহিমা ফুড ও মডার্ণ ডাইং অ্যান্ড স্ক্রিন প্রিন্টিংকে  ডিলিস্টিংয়ের (তালিকাচ্যুত) সিদ্ধান্তে ডে ট্রেডার, বিনিয়োগকারীর ক্ষুদ্র একাংশ ও ম্যানুপুলেটরদের অধিকাংশই জাঙ্ক শেয়ারের আতঙ্কে ভূগছে।

বিনিয়োগকারীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, তাদের ভয় অন্যান্য অত্যন্ত দুর্বল মৌলভিত্তি শেয়ার (জাঙ্ক) ও উৎপাদন বন্ধ থাকা কোম্পানির বেলায় কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে?  এই আতঙ্কে অধিকাংশ দুর্বল মৌলভিত্তি (জাঙ্ক) শেয়ার সেল পেশারে।  শীর্ষ টপটেন লুজার দখল করে আছে দুর্বল মৌলভিত্তির শেয়ার।

যেসব কোম্পানি উৎপাদনে বা ব্যবসায় নেই, দীর্ঘদিন লভ্যাংশ দিচ্ছে না, বছরের পর বছর আয় (ইপিএস) নেগেটিভ, নেট এ্যাসেট ভ্যালু (ন্যাভ) খুবই কম বা নেগেটিভ (পুঞ্জীভূত লোকসান আছে), ম্যানেজমেন্ট প্রতারণামূলক আচারণ করে বিনিয়োগের সাথে, প্রতারণামূলক ডিভিডেন্ট ঘোষাণা করে। তাদের কোম্পানির শেয়ারকে জাঙ্ক শেয়ার বলে।

১৯ জুলাই ডিএসইতে টপটেন লুজার

টপটেন লুজার ছাড়িয়ে শতকরা হিসেবে দাম কমার শীর্ষ ২২ কোম্পানির একুশটিই দুর্বল মৌলভিত্তি সম্পন্ন কোম্পানি। বাকী একটি মিউচুয়ার ফান্ড। চিত্রে দেখুন।

১৯ জুলাই ডিএসইতে শীর্ষ ২২ লুজারের ২১ টিই দুর্বল মৌলভিত্তির শেয়ার।

অভিঙ্গ বিনিয়োগকারী আল- আমীন বলেন,“আমাদের বিপদ! ফান্ডামেন্টাল শেয়ারের বিনিয়োগ করে লুজার হয়েছি। ব্যাংকের শেয়ারগুলো অবস্থা দেখুন। এগুলোর দাম বাড়ে না।  বাড়ে দুর্বল মৌলভিত্তি সম্পন্ন শেয়ারের।যারা কারসাজি করে এসব শেয়ারের দাম বাড়ায়, তাদেরকে কোন শাস্তি হয় না। কিন্তু ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী লঘু আপরাধে গুরুদন্ড পায়। এবার ডিলিস্টিংয়ে তারা আরও লুজার।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here