কোভিড ভ্যাকসিন পৌঁছে দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে মার্কিন পরিবহন দপ্তর

যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (এফডিএ) অনুমোদন পাওয়ার পরই যেন জনগণের কাছে কোভিড ভ্যাকসিন পৌঁছে দেওয়া যায়, সে জন্য এরই মধ্যে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে মার্কিন পরিবহন দপ্তর। জরুরি ভিত্তিতে ভ্যাকসিন সরবরাহে যেন কোনো সমস্যা না হয়, সে জন্য আগে থেকেই প্রয়োজনীয় আনুষ্ঠানিকতাগুলো সেরে রেখেছে বলে আজ তারা জানিয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, জরুরি ভিত্তিতে দ্রুততার সঙ্গে কোভিড ভ্যাকসিন যেন সরবরাহ কর যায় সে জন্য মার্কিন সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বেসরকারি খাতের বিভিন্ন কোম্পানির সঙ্গে আগে থেকেই কাজ করছে। ভ্যাকসিন অনুমোদনের সঙ্গে সঙ্গেই তা কারখানা থেকে বিতরণকেন্দ্রগুলোয় নিয়ে যেতে যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়েছে। ভ্যাকসিন পরিবহনে সম্ভাব্য সব সমস্যার কথা বিবেচনা করে প্রয়োজনীয় সব নিরাপত্তা ব্যবস্থা আগে থেকেই নেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, এখন পর্যন্ত মার্কিন দুই প্রতিষ্ঠান ফাইজার ও মডার্না তাদের তৈরি ভ্যাকসিনের অনুমোদন চেয়ে এফডিএর কাছে আবেদন করেছে। এর মধ্যে ফাইজারের আবেদন নিয়ে এফডিএর সংশ্লিষ্ট কমিটি আগামী ১০ ডিসেম্বর সভায় বসবে। আর মডার্নার আবেদনটি নিয়ে তারা বসবে আগামী ১৭ ডিসেম্বর। এ দুই সভায় ভ্যাকসিন দুটি অনুমোদন পেলে তা দ্রুত সরবরাহ করা হবে।

ভ্যাকসিনের সরবরাহ যেন দ্রুততার সঙ্গে করা যায়, সে জন্য বেশ কিছু কাজ আগে থেকে সেরে রাখা হচ্ছে। সাধারণত কোনো টিকা এফডিএ অনুমোদন পাওয়ার পর সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের (সিডিসি) কাছে যায়। সিডিসি তখন এর বিতরণ পদ্ধতি ও প্রয়োজনীয় যাবতীয় নির্দেশনা দেয়। এসব নির্দেশনা মেনেই সংশ্লিষ্ট ভ্যাকসিন বিতরণ করা হয়। কিন্তু করোনা মহামারির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো আগে থেকেই সব প্রস্তুতি নিচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে সিডিসি ভ্যাকসিন বিতরণসহ যাবতীয় বিষয়ে নির্দেশিকা তৈরি করতে আজ মঙ্গলবার সভায় বসেছে।

সিডিসির এ সভার সিদ্ধান্ত সম্পর্কে এখনো জানা যায়নি। তবে এর আগে সিডিসির ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলোর বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছিল, যুক্তরাষ্ট্রে চারটি ধাপে করোনা ভ্যাকসিন বিতরণ করা হবে। শুরুর ধাপেই ভ্যাকসিনটি পাবে স্বাস্থ্যকর্মী ও অন্য গুরুতর রোগ রয়েছে এমন বয়স্ক ব্যক্তিরা।

এদিকে করোনার ভ্যাকসিন তৈরি হয়ে গেলেও এর অনুমোদন এখনো হচ্ছে না কেন, তা নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনের খবরে বলা হয়, এফডিএ কেন এখনো ফাইজারের তৈরি করোনা টিকার জরুরি অনুমোদন দেয়নি, তা জানতে চেয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। বিষয়টি নিয়ে হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ মার্ক মেডোস আজ মঙ্গলবার এফডিএ কমিশনার স্টিফেন হানের সঙ্গে বৈঠক করবেন বলে জানিয়েছে হোয়াইট হাউসের দুটি সূত্র।

ওই দুই সূত্র জানায়, স্টিফেন হানকে মার্ক মেডোস করোনা ভ্যাকসিনের অনুমোদন বিষয়ে জানতে ডেকে পাঠালে হান ফোনে তাঁর সঙ্গে কথা বলতে চান। কিন্তু মার্ক মেডোস সরাসরি কথা বলার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। ফলে তাঁদের মধ্যকার আলাপ উত্তেজনাপূর্ণ হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

গতকাল সোমবার স্টিফেন হান জানিয়েছিলেন, এফডিএ ভ্যাকসিন অনুমোদনের ক্ষেত্রে তাদের পদ্ধতিই অনুসরণ করবে। এ বিষয়ক এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘আমাদের অভিজ্ঞ বিজ্ঞানীরা এ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। এমন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে তাঁদের সময় লাগবে।’

স্টিফেন হানের এই বক্তব্যই সম্ভবত ডোনাল্ড ট্রাম্পের অসহিষ্ণুতার কারণ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here