‘উন্নয়নের জন্য শেয়ার ও বন্ড বাজারকে কাজে লাগাতে হবে’

স্টাফ রিপোর্টার : সহস্রাব্দের উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনের জন্য বিপুল পরিমাণ বিনিয়োগ প্রয়োজন। কিন্তু প্রচলিত উৎসের মাধ্যমে এই বিনিয়োগ-চাহিদা পূরণ করা সম্ভব নয়। তাই অর্থায়নের বিকল্প উৎসের দিকে নজর দিতে হবে। সে ক্ষেত্রে পুঁজিবাজার হতে পারে সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ও কার্যকর উৎস। এসডিজির জন্য শেয়ারবাজার ও বন্ডবাজারকে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে হবে।

বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর রাজধানীর একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত ‘ইনোভেটিভ ফাইন্যান্স টু অ্যাচিভ ইনক্লুসিভ অ্যান্ড সাসটেইনেবল বিজনেস অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট: ক্যাপিটাল মার্কেট ডেভেলপমেন্ট, ব্লেন্ডেড অ্যান্ড ফিনটেক’ শিরোনামের এক সেমিনারে আলোচকরা এ কথা বলেন।

ইন্টারন্যাশনাল চেম্বার অব কমার্স, বাংলাদেশ (আইসিবিবি) আয়োজিত এ সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের প্রেসিডেন্ট মাহবুবুর রহমান।

সেমিনারে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা এবং বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) প্রাক্তন চেয়ারম্যান ড. এ বি মির্জা মোঃ আজিজুল ইসলাম বলেন, ব্যাংকিং খাতের সঙ্কটময় অবস্থায় এটা স্পষ্ট যে, এই খাতটি দীর্ঘমেয়াদী অর্থায়নের জন্য মোটেও উপযোগী। স্বল্প মেয়াদী আমানত নিয়ে দীর্ঘমেয়াদী অর্থায়ন বড় ধরনের ভারসাম্যহীনতা ও ঝুঁকির জন্ম দেয়। এ অবস্থার উত্তরণে পুঁজিবাজারকে কাজে লাগাতে হবে। তাই পুঁজিবাজার ও বন্ডবাজারের উন্নয়ন খুবই জরুরী। সরকারের নীতিনির্ধারকদেরকে বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করে এই বাজারের উন্নয়নে মনোযোগ দিতে হবে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক কেএএম মাজেদুল ইসলাম সেমিনারে বলেন, গত পাঁচ বছরে ডিএসই বন্ড মার্কেট, ছোট মূলধনের কোম্পানি এবং অল্টারনেটিভ ট্রেডিং এর জন্য আলাদা প্ল্যাটফরম গঠন করেছে। কিন্তু নিয়ন্ত্রক সংস্থার দিক থেকে প্রয়োজনীয় সহায়তা না পাওয়া, উপযোগী বিধিবিধানের অভাব এবং সংশ্লিষ্ট স্টেকহোল্ডারদের অনাগ্রহের কারণে এগুলো কার্যকর হতে পারেনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here