ইতিহাসের অংশ হতে পেরে আমরা গর্বিত : সুমী

নসার্ট ফর বাংলাদেশ। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের সঙ্গে এই নাম উজ্জ্বল হয়ে জ্বলছে। একটি সঙ্গীতানুষ্ঠান। কনসার্ট। ১ আগস্ট ১৯৭১ নিউ ইয়র্ক সিটির ম্যাডিসন স্কোয়ার গার্ডেনে প্রায় ৪০ হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত, সাবেক বিটল্‌স সঙ্গীতদলের লিড গিটারিস্ট জর্জ হ্যারিসন এবং ভারতীয় সেতারবাদক রবিশঙ্করের আয়োজনে এই কনসার্টে সংগীত পরিবেশন করেন- বব ডিলান, এরিক ক্ল্যাপটন, জর্জ হ্যারিসন, বিলি প্রিস্টন, লিয়ন রাসেল, ব্যাড ফিঙ্গার এবং রিঙ্গো রকস্টারসহ আরো অনেকেই।

 

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকে যখন পাকিস্তান বহির্বিশ্বে গৃহযুদ্ধ হিসেবে তুলে ধরছিল, তখন এই কনসার্ট বিশ্বের সকল মানুষের কাছে বাংলাদেশিদের মুক্তির বার্তা পৌঁছে দিয়েছিল। মূলত বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ-সম্পর্কিত বাংলাদেশের নৃশংসতার ফলে সাহায্যের উদ্দেশ্যে আয়োজন করা হয়েছিল। একই আদলে, স্বাধীনতার ৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপনে একই স্থানে শুক্রবার হয়ে গেল ‘গোল্ডেন জুবিলি বাংলাদেশ কনসার্ট। ‘ এই কনসার্টে অংশ নেয় বিশ্ববিখ্যাত ব্যান্ড স্করপিয়ন্স এবং বাংলাদেশের চিরকুট। বাংলাদেশের তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আইসিটি বিভাগ কনসার্টটির মূল আয়োজক।

যুক্তরাষ্ট্রের দর্শক ছাড়াও এই কনসার্টে প্রচুর প্রবাসী বাংলাদেশি দর্শক দেখা গিয়েছে। উপভোগ করতে দেখা গেছে কনসার্ট। গোল্ডেন জুবিলি বাংলাদেশ কনসার্টে অংশ নেওয়া প্রসঙ্গে চিরকুট ব্যান্ডের ভোকালিস্ট শারমিন সুলতানা সুমী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এমন একটি আয়োজনে অংশ নেওয়াটা একটা ইতিহাস। সেই ইতিহাসে যুক্ত হতে পেরে আমি গর্বিত। কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি এই আয়োজনের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের। কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি আইসিটি ডিভিশনকে। স্বাধীনতার ৫০ বছর পরে সেই একই স্থানে মানে ম্যাডিসন স্কয়ারে গান গাওয়াটা শুধু চিরকুট নয় এটা বাংলাদেশিদের জন্যও গর্বের। ’

সুমী বলেন, ‘বিশবিখ্যাত ব্যান্ড স্কোরপিয়ন্সের সঙ্গে একই মঞ্চে পারফর্ম করাটাও খুব একটা সহজ বিষয় নয়। এমন অফার পেয়ে টেলিফোন যখন পেয়েছিলাম তখন বিশ্বাসও করতে পারছিলাম না, যদিও অনেক পরে ধাতস্ত হয়েছি। তবে এটাও সত্য যে গত ১১ বছরে আন্তর্জাতিকভাবে অনেকগুলো কনসার্ট করে চিরকুটের পোর্টফোলিও ভারী হয়েছে। ’

এই কনসার্টে সুমীকে গাইতে দেখা যায় ধন্য ধান্যে পুষ্পে ভরা, কানামাছিসহ চিরকুটের সমস্ত জনপ্রিয় গান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here