আজীবন মানুষের ভালোবাসার মধ্যে থাকতে চাই : সাবিনা ইয়াসমিন

ডেস্ক রিপোর্ট : বাংলা গানকে সমৃদ্ধ করা হাতেগোনা কয়েকজন শিল্পীর মধ্যে সাবিনা ইয়াসমীন অন্যতম। অসংখ্য জনপ্রিয় ও কালজয়ী গান উপহার দিয়েছেন গুণী এই শিল্পী। বিশেষ করে দেশাত্মবোধক গানে তার তুলনা তিনি নিজেই। অর্থাৎ সবচেয়ে বেশি দেশাত্মবোধক গান উপহার দিয়েছেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত এই গায়িকা।

বুধবার, ৪ সেপ্টেম্বর সাবিনা ইয়াসমীনের জন্মদিন। বিশেষ এই দিনে তার সঙ্গে কথা হয় একটি অনলাইনের। তিনি বলেন, ‘অনেকেই শুভেচ্ছা-শুভকামনা জানাচ্ছেন। জন্মদিন এলে বরাবরই মানুষের বাড়তি ভালোবাসা পাই। আর এই ভালোবাসার চেয়ে বড় প্রাপ্তি কিছু নেই। আজীবন মানুষের ভালোবাসার মধ্যে থাকতে চাই।’

জন্মদিনের আয়োজন প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ‘সকালে চ্যানেল আই জন্মদিনের কেক কেটেছে। সেখানে বেশ ভালো সময় কেটেছে। এছাড়া কাছের মানুষ, আত্মীয়-স্বজন ও পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সন্ধ্যায় বাসায় কেক কাটবো।’

মাসব্যাপী কনসার্টে গান করতে একটি দেশে যাওয়ার কথা বলেছিলেন। সেটি কোন দেশে এবং কবে যাচ্ছেন? এর উত্তরে সাবিনা ইয়াসমীন বলেন, ‘না, বিদেশ সফরে যাচ্ছি না। প্রস্তাব ছিলো, না করে দিয়েছি। আপাতত তিন মাস দেশের বাইরে যেতে চাই না। সঙ্গত কারণে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

আপনি দীর্ঘদিন ধরেই নতুন কোনো দেশাত্মবোধক গান করছেন না। এর কারণ কী- এমন প্রশ্নের উত্তরে সাবিনা বলেন, ‘আমার তো মনে হয়- এখন আর কেউ মানসম্মত দেশের গান তৈরি করতে পারছেন না। গীতিকাব্যে মান নেই, সুরে প্রাণ নেই- যে কারণে আর দেশের গান করা হয় না। তবে মানসম্মত গান হলে অবশ্যই গাইবো। মানে, আমি যে ধরনের দেশাত্মবোধক গান গেয়েছি- সেই মানের গান হতে হবে।’

‘সব ক’টা জানালা খুলে দাও না’, ‘সেই রেল লাইনের ধারে’, ‘জন্ম আমার ধন্য হলো মাগো’, ‘একটি বাংলাদেশ তুমি জাগ্রত জনতার’, ‘ও আমার বাংলা মা তোর’, ‘সুন্দর সুবর্ণ-তারুণ্য লাবন্য’, ‘ও মাঝি নাও ছাইড়া দে’সহ আরও অনেক দেশাত্মবোধক জনপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন সাবিনা ইয়াসমীন। পাশাপাশি অডিও-প্লেব্যাক মিলিয়ে উপহার দিয়েছেন অসংখ্য জনপ্রিয় আধুনিক গান।

সঙ্গীতে অসামান্য অবদানের জন্য ১৯৮৪ সালে একুশে পদক এবং ১৯৯৬ সালে স্বাধীনতা পদকে ভূষিত হন সাবিনা ইয়াসমীন। এছাড়া ১৩বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ছাড়াও পেয়েছেন দেশ-বিদেশে আরও অসংখ্য পুরস্কার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here